1. www.bd.faridpurnews24@gmail.com : ফরিদপুর নিউজ :
মঙ্গলবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১১:২৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম
নামাজের ভিতরে রয়েছে ছয়টি ফরজ মধুখালীর বোয়ালিয়া থেকে রাজবাড়ির বাইপাস সড়কে খানাখন্দ, ভোগান্তিতে চালক ও যাত্রীরা ফরিদপুরে স্কুল ছাত্রী ধর্ষনের মামলায় বখাটের যাবজ্জীবন ফরিদপুরে ভার্চুয়াল স্কুলে মানসম্মত শিক্ষা নিশ্চিতকরণে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত সালথায় অবৈধ বালু উত্তোলনের ড্রেজার পুড়িয়ে দিল প্রশাসন বোয়ালমারী জর্জ একাডেমীর সরকারি নির্দেশনা উপেক্ষা পরীক্ষার নামে অর্থ বাণিজ্যের অভিযোগ ফরিদপুর নতুন বাস স্ট্যান্ড: অব্যবস্থাপণা নিরসনে মেয়রের সাথে মটর ওয়ার্কার্স শ্রমিক ইউনিয়ন নেতৃবৃন্দের সাক্ষাৎ ফরিদপুরে অবৈধভাবে কাটা সরকারি রাস্তার গাছ জব্দ করলো বন বিভাগ ফরিদপুরে ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা আফসার শেখ ভোগ করছে সকল সরকারি সুযোগ সুবিধা ফরিদপুর সদর উপজেলার বিভিন্ন প্রকল্পের উদ্বোধন করলেন জেলা প্রশাসক

সরকারী বরাদ্ধকৃত অর্থে তৈরি পাকা ল্যাট্রিন রাতের অন্ধকারে ভেঙ্গে গুড়িয়ে দিয়ে ভুমি দখল করেছে ব্যবসায়ী

  • আপডেট : বুধবার, ২ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ৩২ বার পড়া হয়েছে

ফরিদপুর জেলার সদর উপজেলার ঈশান গোপালপুর ও মাচ্চর ইউনিয়নের অন্তর্গত পিঠাকুমড়া বাজার জামে মসজিদের মুসুল্লি ও বাজারস্থ দোকানদারদের ব্যবহৃত সরকারী বরাদ্ধে এলজিইডি কর্তৃক তৈরি পাকা ল্যাট্রিন ভেঙ্গে ভুমি দখল করে টিনের বেড়া প্রদান করেছে ব্যবসায়ী মোঃ হায়দার আলী গংরা। ভুমির পুরাতন মালিক মাধব কুমার সাহা বলেন আমি স্থানীয় বাজারে গার্মেন্টস ব্যবসায়ী মোঃ হায়দার আলী গংদের কাছে আমার মালিকানা সম্পত্তি বিক্রি করেছি প্রায় পাচ বছর আগে। তবে এখানে পাকা ল্যাট্রিন ভাঙ্গাতে আমার কোন হাত নেই। কারণ এটা মুসলিম ধর্মীয় মসজিদের মুসল্লিসহ স্থানীয় দোকান ব্যবসায়ীরা ব্যবহার করতো।

পিঠাকুমড়া বাজার জামে মসজিদের কমিটির সভাপতি ও বাজার কমিটির সাধারনণ সম্পাদক মোঃ এনায়েত হোসেন বলেন মসজিদের মুসুল্লিদের জন্য জেলা পরিষদ থেকে সরকারী বরাদ্দ নিয়ে নতুন আরেকটি ল্যাট্রিন তৈরি করা হয়েছে। সেক্ষেত্রে ওটা বাজারের লোকজন ব্যবহার করত ও নোংরা হয়ে গিয়েছিল। আর বাজারের লোকজন ব্যবহার করত বিধায় সব সময় পরিষ্কার রাখা সম্ভব হয় না। এটা মসজিদের মুসুল্লিদের এখন দরকার হয়না, নতুন তৈরি করা হয়েছে আরেকটি। বিধায় হায়দার আলীকে বলেছি এটা আমাদের এখন ব্যবহার না করলেও হবে। তবে ল্যাট্রিন ভাঙ্গার ব্যাপারে তাদেরকে আমরা কোন অনুমতি দেই নাই কারণ এটা এলজিইডির অর্থায়নে তৈরি করা।

এ ব্যাপারে সাধারণ জনগণের সাথে কথা বললে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ব্যক্তি বলেন এটা মসজিদের মুসুল্লি ও বাজারের লোকজন ব্যবহার করত। তবে সরকারী অর্থায়নে তৈরি ল্যাট্রিন ভাঙ্গার কথা জিঙ্গেস করলে তারা বলেন এটা আমরা কিছু জানিনা। তবে এটি ভাঙ্গার জন্য সঠিক তদন্ত সাপেক্ষে যথাযথ আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে অনুরোধ করেছেন।

স্থানীয় সচেতন ব্যক্তি হিসেবে ভুমি অফিসে কর্মরত মোঃ ইলিয়াছ সহ কেউ কেউ এর প্রতিবাদ করেন। তবে ইলিয়াছ প্রকাশ্যে এসে এর প্রতিবাদ জানালে তার উপর ভিন্ন দোষ দিতে থাকে। যার কোন মিল নেই এই অভিযোগের ব্যাপারে।

সাধারন ব্যক্তিদের কাছে ল্যাট্রিন ভাঙ্গার কথা জিঙ্গেস করলে তারা বলেন সরকারী অর্থায়নে তৈরিকৃত ল্যাট্রিন ইচ্ছেমত ভেঙ্গে গুড়িয়ে দেয়াটা অন্যায় হয়েছে। কতৃপক্ষের মতামত নেয়ার দরকার ছিল।
কারন ঐ সময়ের ভূমির মালিকের সস্মতিক্রমেই ল্যাট্রিন তৈরি করা হয়েছিল। এ বাজারটি অনেক বড়। এখানে অনেক মানুষের আসা-যাওয়া। জরুরী কারণে বাজারের সাধারন মানুষ এটা ব্যবহার করতে পারতো।

ব্যবসায়ী মোঃ হায়দার আলীর কাছে এ ল্যাট্রিন ভাঙ্গার কথা জিঙ্গেস করলে তিনি সাংবাদিকদেরকে জানান আমি সহ আরও কিছু লোকজন নিয়ে ভেঙ্গে ফেলেছি। সরকারী কর্তৃপক্ষের অনুমতি আছে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন মসজিদের কমিটির কথা। তবে মসজিদ কমিটি ভাঙ্গার অনুমতি দেয় নাই, মুসুল্লিদের ব্যবহারের জন্য আরেকটি তৈরি করা হয়েছে বিধায় এটা বাজারের লোকদের জন্য উন্মুক্ত। মোঃ হায়দার আলী গংরা রাতের আধারে এই পাকা ল্যাট্রিন ভাঙ্গার কারণ কি? জানতে চাইলে তিনি কোন উত্তর দিতে পারেনি।

সরকারী অর্থায়নে তৈরী এ ল্যাট্রিন ভাঙ্গায় বাজারের লোকদের মাঝে চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে বলে প্রতিয়মান হয়েছে। এ নিয়ে সাধারন মানুষের মধ্যে আনাগোণা রয়েছে।

এ ব্যপারে সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন ল্যাট্রিন ভাঙ্গার ব্যাপারে আমি কিছু জানি না।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
© স্বত্ব মেহেদী হাসান সীমান্ত
টেপাখোলা বানিয়া পাড়া সড়ক,
টেপাখোলা,ফরিদপুর।
পোস্ট কোড ৭৮০০ বাংলাদেশ থেকে প্রকাশিত ও প্রচারিত।
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি
অনুমতি ছাড়া নকল করা বা কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।

প্রযুক্তি সহায়তায় মাল্টিকেয়ার

You cannot copy content of this page